মিথ্যা খবর প্রকাশ করায় প্যানেল মেয়র বাবু’র সংবাদ সম্মেলন

27

নারায়ণগঞ্জ ফার্স্ট নিউজ:

ধর্ষনের অভিযোগ এনে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু ও তার ছেলের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে প্যানেল মেয়র বাবু। শনিবার (১৮ মে) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় কাউন্সিলর বাবু বলেন, দৈনিক সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকায় গত ১৪ মে প্রকাশিত ‘এবার ধর্ষণ মামলায় ফাঁসতে পারেন প্যানেল মেয়র বাবু’ শিরোনামে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে ভিত্তিহীন, উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও সঠিক নয়। একটি স্বার্থান্বেষী মহলের প্ররোচনায় এ মিথ্যা সংবাদের অবতারণা করা হয়েছে। চারিত্রিক, সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার লক্ষ্যে পত্রিকাটিতে আমাকে ও আমার সন্তানকে জড়িয়ে এ ধরনের একটি কুরুচিপূর্ণ ও মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করে।

সংবাদে উল্লেখিত, পুলিশ সদর দপ্তরের অভিযোগের বিষয়ে আব্দুল করিম বাবু বলেন, যে মেয়েটি ধর্ষণের স্বীকার হয়েছে বলে সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে, তার সাথে আমার ও আমার পরিবারের কথা হয়েছে গতকালও। মেয়েটি আমাদের বলেছে, এ ধরনের কোনো অভিযোগ আমি কখনোই করিনি, কেননা এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি। এ বিষয়ে ঐ মেয়েটি নাকি সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকায় গিয়েছিলো এবং সেই পত্রিকায় মেয়েটির পক্ষ থেকে প্রতিবাদও পাঠানো হয়েছে। যা আজ সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকায় প্রকাশিতও হয়েছে।

তিনি বলেন, সাংবাদিকরা সমাজের আয়না, সমাজের বিবেক। কিন্তু কিছু হলুদ সাংবাদিকদের কারণে প্রথিতযশা ও মূল ধারার সাংবাদিকদের কথা শুনতে হয়। সাংবাদিকতার কোন ইথিক্সের বলে সময়ের নারায়ণগঞ্জ পত্রিকা এ ধরনের ভুয়া একটি সংবাদ প্রকাশ করলো, তা আমি জানতে চাই। রাজনীতির বাইরেও আমাদের জীবন আছে, আমাদের পরিবার আছে। এ ধরনের মিথ্যা সংবাদের কারণে আমাদের বাবা-ছেলের আত্মহত্যা করা ছাড়া আর কোনো পথ ছিলো না। তারপরও সত্য উন্মোচনের লক্ষ্যে আমি এই সংবাদ সম্মেলন করছি। আপনাদের কাছে তথা গণমাধ্যমকর্মীদের কাছেই আমি এর বিচার দিলাম। এ বিষয়ে আমি আইনী লড়াই লড়বো। প্রয়োজনে আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমার আরজি নিয়ে যাবো।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আব্দুল করিম বাবুর স্ত্রী ফারহানা করিম ও ছেলে রায়হান করিম রিয়েন।

যিনি ধর্ষনের স্বীকার হয়েছিলো বলে ঐ সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে, সেই নারীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনিও তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, এ ধরনের কোনো ঘটনাই ঘটেনি। গতকাল আমি ও আমার স্বামী ঐ পত্রিকা অফিসে গিয়েছি, আমরা বলেছি, কিভাবে একটি নারী সম্পর্কে না জেনে এভাবে একটি মিথ্যা নিউজ করলেন আপনারা। তারা কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি। তারা আজ আমার একটি প্রতিবাদ ছেপেছে। আমি ঐ সকল হলুদ সাংবাদিকদের নামে ইতিমধ্যেই সাইবার ট্রাইব্যুনালে মামলা করেছি